কীভাবে কাজ করে ফরেক্স এবং সিএফডি মার্কেট এবং এটা কি !

bankbima.xyz

 

মার্কেট বিশ্লেষকঃ অনেকটা প্রচলিত শেয়ার মার্কেটের মতোই। তবে এখানে সেল বা বাই দু’টি ই করা যায় একসাথে। এখানে কাজ করতে বা ট্রেডিং করতে হলে আপনাকে জানতে হবে pips কি, এর ব্যবহার, লট সাইজ কি বা এটা কীভাবে কাজ করে ইত্যাদি। প্লাটফরম কি বা কীভাবে প্লাটফরমে ট্রেড ওপেন করতে হয়।

-বিজ্ঞাপন-

 

আপনি যখন সিএফডি গুলি (পার্থক্যের জন্য চুক্তি) লেনদেন করেন, আপনি একটি বাজারে নির্দিষ্ট সংখ্যক চুক্তি কিনবেন যদি আপনি এটি বৃদ্ধির আশা করেন, এবং যদি আপনি এটি হ্রাস পাওয়ার আশা করেন তবে সেগুলি বিক্রি করবেন। আপনার অবস্থানের মানের পরিবর্তন অন্তর্নিহিত মার্কের গতিবিধি প্রতিফলিত করে।

 

পার্থক্যের জন্য একটি চুক্তি (Contract For Differences) ব্যবসায়ীদের অন্তর্নিহিত সম্পদের প্রকৃতপক্ষে মালিকানা বা প্রকৃত ডেলিভারি গ্রহণ না করে একটি অন্তর্নিহিত সম্পদের ভবিষ্যত বাজারের গতিবিধি সম্পর্কে অনুমান করতে দেয়। শেয়ার, পণ্য এবং বৈদেশিক মুদ্রার মতো অন্তর্নিহিত সম্পদের একটি পরিসরের জন্য সিএফডি পাওয়া যায়।

 

  • কিছু কিছু দেশে কেন বে-আইনী?

কিছু কিছু দেশে CFDগুলি বেআইনি হওয়ার একটি কারণ হল যে সেগুলি একটি ওভার-দ্য-কাউন্টার (OTC) পণ্য, যার অর্থ হল তারা নিয়ন্ত্রিত এক্সচেঞ্জের মধ্য দিয়ে যায় না। লেভারেজ ব্যবহার করার কারনে বৃহত্তর ক্ষতির সম্ভাবনার জন্যও অনুমতি দেয় না এবং নিয়ন্ত্রকদের জন্য উদ্বেগের বিষয় হয়।

 

  • মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং যুক্তরাজ্যে কি ফরেক্স ট্রেডিং বৈধ?

    যুক্তরাজ্যে ফরেক্স ট্রেডিং সম্পূর্ণ আইনি কারণ এই নিয়ন্ত্রক এবং বিচারিক অবস্থার কারণেই ইউকে ফরেক্স ব্রোকাররা সারির শীর্ষে রয়েছে।

     

     

 

মার্কিন বাসিন্দারা ফরেক্স ট্রেড করতে পারেন। আমরা আরও এগিয়ে যাওয়ার আগে, এটা বলা জরুরি যে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ফরেক্স ট্রেডিং নিষিদ্ধ নয়। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের একজন ব্যবসায়ী ইউরোপ বা অস্ট্রেলিয়ায় বসবাসকারী একজন ব্যক্তির মতোই অনলাইনে FX বাণিজ্য করতে পারেন। যাইহোক, প্রধান পার্থক্য হল বিভিন্ন ধরনের ব্রোকারের মধ্যে যা একজন ব্যবসায়ী বেছে নিতে পারেন।

কীভাবে শুরু করবেনঃ

Step 1:

Skrill e-wallet -এর মাধ্যমে সরাসরি বাংলাদেশের স্থানীয় বানিজ্যিক ব্যাংকসমূহের হিসাবে ডলার ট্রান্সফার করা যায়।

Skrill E-wallet account open করতে এখানে ক্লিক করুন : skrill.com

E-wallet account open করতে এই ভিডিও টি দেখে নিতে পারেন: https://youtu.be/cfMcso3PtNY

বিশেষ দ্রষ্টব্যঃ বাংলাদেশ থেকে কোনো বিদেশী আর্থিক প্রতিষ্ঠানে সরাসরি ডলার জমা করা যায় না বা অনুমোদিত নয়। তবে বিদেশ থেকে প্রতিমাসে নির্দিষ্ট পরিমান ডলার আনা যাবে।

 

Step 2:

CFD (Contract for Difference) মার্কেটে account open করতে নিম্নের ব্রোকারে হিসাব খুলতে হবে। এই ব্রোকারটি বিভিন্ন রেগুলেটরী অথরিটি কর্তৃক অনুমোদিত।

  1. এ্যাকাউন্ট খুলতে ক্লিক করুন : xm.com
  2. এ্যাকাউন্ট খুলতে ক্লিক করুন : icmarkets.com
  3. এ্যাকাউন্ট খুলতে ক্লিক করুন : fpmarkets.com

 

(যেকোনো একটি এ্যাকাউন্ট খুললেই হবে। সুবিধার্থে তিনটি কোম্পানীর লিংক দেয়া হলো)

  • এ্যাকাউন্ট খুলতে এই ভিডিওটি দেখে নিতে পারেন-  https://youtu.be/4tqKT46xxO8

 

Recommendation for New account:

  1. Mt4 standard account (swap free)
  2. Leverage: 1:500
  3. Currency : USD

 

Step 3:

  1. Mt4 trading platform setup ( https://youtu.be/khZTdj3IPBQ )
  2. Login id, password and server id (Must be accurate)

 

Step 4:

Follow the advise-

  1. মূলধন ১০০ ডলার হলে লট সাইজ ০.০১ ট্রেড করা উত্তম।
  2. যেকোনো পেয়ার সেল বা বাই দেয়া যাবে।
  3. দিন-রাত ২৪ ঘন্টা এই মার্কেট খোলা থাকে। শুক্রবার রাত ৩ টা হতে রবিবার রাত ৩ টা পর্যন্ত মার্কেট বন্ধ থাকে।
  4. মার্কেট এনালাইসিস না বুঝে ট্রেড দিলে লস হওয়ার সম্ভাবনা ৭২% যা বিশ্বের ট্রেডিং জরিপ বলে।
  5. যেকোনো পিসি, ল্যাপটপ বা মোবাইলে ট্রেড করা যায়। অনলাইন সুরক্ষা বিষয়ে ভালো ধারনা থাকা বাঞ্চনীয়। অপরিচিত লিংকে ক্লিক করা থেকে বিরত থাকুন।
  6. সকল এ্যাকাউন্ট খুলতে একটি ইমেইল প্রয়োজন হবে। সকল ক্ষেত্রে একই রকম তথ্য দিতে হবে। এ্যাকাউন্ট ভেরিফিকেশন করতে NID বা Passport প্রয়োজন হবে এবং ঠিকানা ভেরিফাই করতে এড্রেস প্রুফ যেমন- নিজ নামে বিদ্যুৎ বিল, ব্যাংক ষ্ট্যাটমেন্ট অথবা অন্য কোনো ইউটিলিটি বিল প্রয়োজন হবে। ভূল তথ্য দিলে লেনদেনে সমস্যা হতে পারে।
  7. মনে রাখবেন, mt4 প্লাটফরম (পিসি বা মোবাইল প্লাটফরম) শুধু ট্রেড করার জন্য ব্যবহার করা হয়ে থাকে। ডলার জমা বা উত্তোলন করতে হয় ক্লায়েন্ট এরিয়া বা ক্লায়েন্ট পোর্টাল থেকে। সরাসরি বাংলাদেশের ব্যাংক থেকে ডলার জমা করা যায় না। তবে ডলার উত্তোলন করে কিছু ব্যাংকে আনা যায়। তার মধ্যে সিটি ব্যাংক এবং ডাচ-বাংলা ব্যাংক অন্যতম।

 

ফরেক্স এ্যাকাউন্ট, ব্যাংক এ্যাকাউন্ট এবং ই-ওয়ালেট এ্যাকাউন্ট একই নামে হতে হবে বা সব তথ্য একই হতে হবে। অন্যথায় ভেরিফিকেশন সম্পন্ন  করা যাবে না বা পরবর্তীতে লেনদেনে সমস্যা হতে পারে। এই মার্কেটের সাথে বিশ্বের প্রায় ২ বিলিয়ন ব্যক্তির সরাসরি বিনিয়োগ রয়েছে। এই মার্কেটের মোট বিনিয়োগের ৫৬% শেয়ার রয়েছে আমেরিকার। তাই ইউএসএ (USA) সেশনে এই মার্কেট ব্যাপক মুভ করে। এছাড়াও টোকিও সেশন, সিডনি সেশন এবং লন্ডন সেশন মার্কেটে ব্যাপক প্রভাব সৃষ্টি করে। বিশ্ব অর্থনীতি এবং জিও-পলিটিক্স এই মার্কেট মুভমেন্ট-এ সহায়ক হয়ে কাজ করে।

 

প্রত্যেক দেশেরই দৈনিক কিছু অর্থনৈতিক ডাটা রিলিজ হয়ে থাকে। এই ডাটা রিলিজ এর পূর্ব এবং পরবর্তী টাইমগুলো মার্কেট মুভমেন্ট-এ ব্যাপক প্রভাব সৃষ্টি করে, বিশেষ করে ইউএসএ, ইউকে, অষ্ট্রেলীয় এবং কানাডিয়ান ডাটা রিলিজ।

 

 মেইন ইন্ডিকেটর ফর এমটি৪ প্লাটফর্ম (Main Indicator for mt4 platform):

ভালোভাবে ইন্ডিকেটর সেট-আপ এর মাধ্যমে সঠিক এ্যানালাইসিস এর মাধ্যমে ট্রেড করলে প্রতিমাসে ১০% প্রফিট করা খুবই সহজ। mt4 প্লাটফর্ম সেট আপ করতে নিম্নের ইন্ডিকেটরগুলো ব্যবহার করতে পারেন-

  • RSI 14 (Relative strength Index)
  • EMA 9 (Exponential Moving Average 9)
  • EMA 21 (Exponential Moving Average 21)
  • Awesome oscilator
  • SMA 50 (Simple Moving Average 50)
  • SMA 200 (Simple Moving Average 200)
  • SMA 100 (Simple Moving Average 100)
  • Fibonacci Retracement

 

  • যেকোনো পরামর্শের জন্য লেখককে ইমেইল করতে পারেন। আমরা আপনার তথ্য লেখকের কাছে ফরোয়ার্ড  করে দিবো। ( Email: [email protected] )